শুক্রবার-১০ এপ্রিল ২০২০- সময়: রাত ৪:৫৪
বিরামপুরে পৌর মেয়র সহ ৭ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে বিরামপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী পালিত বিরামপুরে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি আটক বিরামপুরে লাখো কণ্ঠে ৭ মার্চের ভাষন পাঠ গুরুদাসপুরে এক বৃদ্ধা খুন বিরামপুরে সর্বোচ্চ নম্বরপ্রাপ্ত কাটলা হলি চাইল্ড স্কুল বিরামপুরে মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে দিনব্যাপী অনুষ্ঠান দিদউফ বিরামপু‌রে দুস্থ শীতার্ত‌দের মা‌ঝে শীতবস্ত্র বিতরন বিরামপুরে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস ও জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণ গণনার সূচনা বিরামপুরে ১২ হাজার শিশুকে ভিটামিন এ প্লাস খাওয়ানো হয়েছে

slider newsdiarybd.com:

বিরামপুরে পৌর মেয়র সহ ৭ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে

এম,আই,তানিম,বিরামপুরদিনাজপুরের বিরামপুর পৌর মেয়র লিয়াকত আলী সরকারসহ ৭ জন বিদেশ ফেরত ব্যক্তিকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. সোলায়মান হোসেন মেহেদী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে, হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা ব্যক্তিদের ৪ জন ভারত, ১ জন সৌদ আরব, ১ জন সিঙ্গাপুর এবং ১ জন মালেয়েশিয়া থেকে দেশে এসেছেন। এসব ব্যক্তিরা এ মাসের ১০ থেকে ১৬ তারিখের মধ্যে দেশে আসেন। এরমধ্যে পৌর মেয়র ১২ তারিখে বিরামপুরে আসেন।

বুধবার (১৮ মার্চ) রাতে ওই ফেরত ব্যক্তিদের নিজ এলাকায় আসার খবর পেয়ে ইউএনও মো. তৌহিদুর রহমান, অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. সোলায়মান হোসেন মেহেদী ওইসব ব্যক্তিদের বাড়িতে যান। বিদেশ ফেরত ব্যক্তিদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশনা দিয়ে আসেন। সেই সাথে বিদেশ ফেরত ব্যক্তিরা হোম কোয়ারেন্টাইনের নির্দেশনা না মানলে বিষয়টি প্রশাসনকে অবগত করতে প্রতিবেশিদের তাগিদ দেওয়া হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. সোলায়মান হোসেন মেহেদী জানান, বিরামপুর পৌর মেয়র লিয়াকত আলী সরকার গত ১২ মার্চ ভারত থেকে দেশে ফেরেন। কিন্তু তিনি হোম কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন না। ১৮ মার্চ বুধবার মেয়র লিয়াকত আলী সরকারের সর্দি ও কাশি দেখা দিলে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়।

বিরামপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী পালিত

এম আই তানিম, বিরামপুর-দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শত বার্ষিকী পালন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৭ মার্চ) সকালে উপজেলা চত্তরে দিনাজপুর-৬ আসনের সংসদ সদস্য শিবলী সাদিক এমপি বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে পুস্পমাল্য দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্য দিয়ে জন্ম শত বার্ষিকীর কর্মসূচি সূচনা করেন ।

এছাড়াও বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন,বিরামপুর উপজেলা পরিষদ,মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ,স্বেচ্ছাসেবকলীগ, ছাত্রলীগ, বিরামপুর প্রেসক্লাবসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন।

পরে বিরামপুর উপজেলা কনফারেন্স রুমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শত বার্ষিকী উপলক্ষে কেক কাটেন সংসদ সদস্য শিবলী সাদিক এমপি এবং বিরামপুর ঢাকা মোড়ে অবস্থিত দারুস সুন্নাহ সেরাতুল কোরআন হাফেজিয়া কওমী মাদ্রাসায় যান ও সেখানে শিবলী সাদিক এমপি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শত বার্ষিকী উপলক্ষে নিজ হাতে মাদ্রাসার ছাত্রদের মিস্টি খাওয়ান। শেষে বঙ্গবন্ধুর আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করা হয় ।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান খায়রুল আলম রাজু, ভাইস চেয়ারম্যান মেজবাউল ইসলাম মন্ডল,পৌর মেয়র লিয়াকত আলী সরকার টুটুল, উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুর রহমান, বিরামপুর সার্কেলর সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মিথুন সরকার,ওসি মোঃ মনিরুজ্জামান প্রমুখ।

বিরামপুরে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি আটক

এম আই তানিম-দিনাজপুরের বিরামপুরে আব্দুর রশীদ (৪৫) নামে এক যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামিকে আটক করেছে পুলিশ।

আটককৃত আব্দুর রশীদ উপজেলার কুশ্যাখালী (ডাংগা) গ্রামের আঃ গফুর এর ছেলে।৭ মার্চ শনিবার দুপুর ১২ টায় তার নিজ বাড়ি হতে তাকে আটক করে পুলিশ।

বিরামপুর থানার ওসি মনিরুজ্জামান আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, স্ত্রীকে হত্যার দায়ে সে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি ছিলেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাকে আটকের পর দুপুরেই দিনাজপুর জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

বিরামপুরে লাখো কণ্ঠে ৭ মার্চের ভাষন পাঠ

মোঃ আকরাম হোসেন-বিরামপুর উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের নিয়ে পাইলট হাইস্কুল মাঠে লাখো কণ্ঠে ৭মার্চের ভাষন পাঠ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিশাল এ অনুষ্ঠানের নেতৃত্ব দেন দিনাজপুর-৬ আসনের এম,পি শিবলী সাদিক। সেই ভাষনে একই সাথে সুর মেলান বিভিন্ন স্কুলের ছাত্রছাত্রী এবং মুক্তিযোদ্ধাসহ নানান শ্রেণি পেশার প্রতিনিধিরা।

এ সময় গভীর আবেগ ও ভাবগম্ভীর আবহের সৃষ্টি হয়। এই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের কল্যাণে বঙ্গবন্ধুর অবদান স্মরণের পাশাপাশি দেশ ও জাতির কল্যাণ ও সমৃদ্ধি কামনা করা হয়।

৭মার্চ সকাল থেকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, প্রশাসনিক কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি ও আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ পাইলট হাইস্কুল মাঠে সমবেত হন। জাতীয় সঙ্গীতের পর বেলা ১১টায় লাখো কণ্ঠে ঐতিহাসিক ৭ মার্চের পুরো ভাষন সমস্বরে পাঠ করা হয়।

এ ভাষনের সময় বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুর রহমানের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, দিনাজপুর-৬ আসনের এম,পি শিবলী সাদিক, উপজেলা চেয়ারম্যান খায়রুল আলম রাজু, ভাইস চেয়ারম্যান মেজবাউল ইসলাম, থানার ওসি মনিরুজ্জামান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি শিবেশ কুন্ডু, নাড়ু গোপাল কুন্ডু, দিলীপ কুন্ডু প্রমূখ।

উল্লেখ্য, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম রাজনৈতিক ভাষণ। আজ অবধি এমন রাজনীতিক বিশ্ববাসী পায়নি।

একটি নিপীড়িত জাতির আত্মোপলব্ধির শ্রেষ্ঠতম দিন ৭ মার্চ। এ দিন আমাদের সমুখে উন্মোচিত হয়েছিল আমাদের হাজার বছরের উযযাপিত জীবনের খতিয়ান।

গুরুদাসপুরে এক বৃদ্ধা খুন

মোঃ মাসুদুর রহমান রুবেল-নাটোর জেলার গুরুদাসপুর থানার পারগুরুদাসপুর গ্রামে মনোয়ারা বেগম (৬৫)নামের এক বৃদ্ধা খুন হয়েছেন।
ভোর ৬ টার দিকে নিহতের স্বামী ফজরের নামাজের উদ্দেশ্যে মসজিদে গেলে মনোয়ারা বেগম ওজু করে নামাজে দাঁড়িয়ে যান।
নামাজরত অবস্থায় কে বা কারা তাকে ছুরিকাঘাত করে তার গহনা গুলো নিয়ে যায়।অতপর হাতেম মাস্টার মসজিদ হতে বাড়ি ফিরে এসে উদ্ভুত  পরিস্থিতি দেখে চিৎকার শুরু করে দেন।
আশেপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হতেই মনোয়ারা বেগম মারা যান। তার বুকে ও গলায় আঘাতের চিন্ন পাওয়া যায়। খবর পেয়ে গুরুদাসপুর থানার ওসি ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ  করছেন বলে জানা গেছে।

বিরামপুরে মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে দিনব্যাপী অনুষ্ঠান

এম আই তানিম, বিরামপুর-মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় অপ্রতিরোধ্য বাংলাদেশ শীর্ষক দিন ব্যাপী বিভিন্ন অনুষ্ঠান করেছে বিরামপুর উপজেলা প্রশাসন।

শনিবার (১১ জানুঃ) সকালে ঢাকা মোড়ে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় নেতাদের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক নিবেদনের মাধ্যমে দিবসের সূচনা করা হয়। পরে উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ, সুধি, সাংবাদিক ও শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা আনন্দ শোভাযাত্রা নিয়ে শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে সমবেত হন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুর রহমানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, সহকারী পুলিশ সুপার মিথুন সরকার, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেজবাউল ইসলাম ও উম্মে কুলছুম বানু, থানার ওসি মনিরুজ্জামান, অধ্যক্ষ শিশির কুমার সরকার, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি নাড়ু গোপাল কুন্ডু, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক মাস্টার, যুগ্ম সম্পদক গোলজার হোসেন, দপ্তর সম্পাদক মামুনুর রশীদ, উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী তাহমিনা বেগম নাইস, প্রবীণ রাজনীতিক আব্দুল আজিজ সরকার, প্রেসক্লাবের আহবায়ক একেএম শাহজাহান প্রমূখ। সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আতশবাজির আয়োজন করা হয়।

দিদউফ বিরামপু‌রে দুস্থ শীতার্ত‌দের মা‌ঝে শীতবস্ত্র বিতরন

দিনাজপুর দ‌ক্ষিণাঞ্চল উন্নয়ন ফোরাম (দিদউফ) এর উ‌দ্যো‌গে অদ্য ১০ জানুয়ারী  শুক্রবার সকাল ১১টায় বিরামপু‌রে দুস্থ শীতার্ত‌দের মা‌ঝে শীত বস্ত্র (কম্বল) বিতরন করা হয়।

উক্ত শীতবস্ত্র বিতরন অনুষ্ঠা‌নে উপ‌স্থিত ছি‌লেন ‘‌দিদউফ’ এর সাধারণ সম্পাদক মোঃ মোজা‌ম্মেল হক, বিরামপুর সরকা‌রি ক‌লে‌জের অধ্যক্ষ জনাব মোঃ ফরহাদ হো‌সেন, ‘দিদউফ’ এর নির্বাহী সদস্য মাহমুদুল হক মা‌নিক, শেখ হা‌বিবুর রহমান, রোজ গাডেন হাই স্কুল প্রধান শিক্ষক আমিনুর রহমান, রাসেকুল ইসলাম রাশু  প্রমুখ।

উ‌ল্লেখ্য‌যে, দিনাজপুর দ‌ক্ষিণাঞ্চল উন্নয়ন ফোরাম (দিদউফ) এর উ‌দ্যো‌গে হা‌কিমপুর, ঘোড়াঘাট ও নবাবগঞ্জ উপ‌জেলা‌তেও শীতবস্ত্র (কম্বল) বিতরন করা হ‌য়ে‌ছে।

বিরামপুরে ১২ হাজার শিশুকে ভিটামিন এ প্লাস খাওয়ানো হয়েছে

এম আই তানিম-বিরামপুর উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের ১৬৯টি কেন্দ্রের মাধ্যমে শনিবার (১১ জানুঃ) উৎসব মূখর পরিবেশে প্রায় ১২ হাজার ৩৪৫জন শিশুকে ভিটামিন এ প্লাস ক্যাপস্যুল খাওয়ানো হয়েছে।

সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে টিকা খাওয়ানোর উদ্বোধন করেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুর রহমান এবং উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সোলায়মান হোসেন মেহেদী।

এসময় হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ আহসান আলী সরকার, ডাঃ মোহাম্মদ আলী হোসেন শাহ, এমটিইপিআই মাসুদ রানা সহ চিকিৎসক, কর্মকর্তা ও স্বাস্থ্যকর্মীগণ উপস্থিত ছিলেন।

দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে সীতার কুটুরি গোচারণ ভূমিতে পরিণত

এম. এ সাজেদুল ইসলাম সাগর-দিনাজপুরের নবাবগঞ্জের ঐতিহাসিক নিদর্শন সীতার কুঠুরি  বৌদ্ধ বিহার অবহেলায়, অযত্নে সংরক্ষণ ও সংস্কারের অভাবে বিলুপ্ত হতে চলেছে।

পর্যটন কেন্দ্রের অপার সম্ভাবনাময় এই স্থানটি সীমানা বেষ্টুনী না থাকায় গোচারণ ভূমিতে পরিণত হয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, ঐতিহাসিক এই নিদর্শনের কক্ষগুলির বেশ কিছু স্থান ভেঙ্গে গেছে। বিহারের মূল ফটকটিতে গরু ছাগলের ছড়াছড়ি। দেখার কেউ নেই।

নবাবগঞ্জ জাতীয় উদ্যানের শালবনের সংলগ্ন এই নিদর্শনকে ঘিরে রামের পত্নী সীতাকে নিয়ে যুগ যুগ ধরে এলাকায় চলে আসছিল কল্পকাহিনী। সীতাকে পঞ্চবটীর বনের গভীরে বনবাস দিয়ে তার থাকার জন্যে তৈরী করে দেয়া হয়েছিল একটি কুঠুরি। যা কিনা সীতার কুঠুরি নামে খ্যাত। কিন্তু  ১৯৬৮ সালে প্রত্মতত্ত্ব বিভাগের অনুসন্ধানকারী নিদর্শনের আংশিক অংশ খননের পর নিশ্চিত হয় এটা একটি প্রাচীন বৌদ্ধ বিহার।

নবাবগঞ্জ উপজেলার সদর থেকে পশ্চিম দিকে বিরামপুর-নবাবগঞ্জ রাস্তার উত্তর পার্শ্বে গোলাপগঞ্জ ইউনিয়নের ফতেপুর মাড়াষ মৌজার প্রায় ১ একর ভুমির উপর অবস্থিত এ বিহারটি। এই বিহার পূর্ব পশ্চিমে লম্বা ২২৪ ফুট, উত্তর দক্ষিণ প্রস্ত ২১২ ফুট।

বিহারটিতে ছোট বড় কক্ষের সংখ্যা ৪১টি। বিহারের ভিতরে দক্ষিণ-পূর্ব দিকে একটি কুপ ছিল। বর্তমানে কুপটি ভরাট হয়ে গেছে। বিহারের বাইরে পুর্ব-দক্ষিণ দিকে পাশাপাশি অবস্থিত ৫টি কুটির দেখা যায়।

সম্ভাবত এগুলো শৌচাগার হিসেবে ব্যবহার হত। মূল মন্দির ছিল দক্ষিণ দিকের মাঝখানে। নিপুন  হাতের গাঁথুনী ইমারতের লম্বা, মধ্যম ও ছোট ইট এবং চুন সূরকী দ্বারা বিহারটি নির্মিত।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়  বিহারের উত্তর দিকে মাড়াষ গ্রামের মহিরউদ্দিনের পুত্র  মোঃ তালেব আলী বিহারের পার্শ্বে জমি চাষ করতে গিয়ে জরাজীর্ণ একটি  ধারালো অস্ত্র (বাইশ) কুড়িয়ে পান। এ অস্ত্র দিয়ে ১/২ কোপে বনের বড় বড় শাল গাছ কাটা যেত।

বিষয়টি বন বিভাগের লোকজন টের পেয়ে তালেব আলীকে জিজ্ঞাবাদ করলে তালেব আলী বন বিভাগের লোককে ওই অস্ত্রটি প্রদান করে। বন বিভাগের কর্মকর্তা অস্ত্রটি পরীক্ষার জন্য উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠান। পরে জানা যায় অস্ত্রটি  ছিল হীরার তৈরী।

বিষয়টি জানাজানি হলে আরও মুল্যবান প্রতœতত্ত্ব মিলতে পারে বলে তৎকালীন দিনাজপুর জেলা পরিষদ নিজস্ব অর্থে বিহারটি খননের উদ্যোগ গ্রহণ করে। চাকরি দেয়া হয় তালেব আলীকে ওই বিহার পাহারা দেয়ার।

কয়েক বছর পুর্বে তালেব আলী মারা যায়। বর্তমানে তালেব আলীর পুত্র ঐ তার পিতার দায়িত্ব পালন করছে। খননের পর সে সময় বিহারের কিছু অংশ সংস্কার করা হয়। এর পরে আর কোন সংস্কার না হওয়ায় অযতেœ ও অবহেলায় বিহারটি বিলুপ্তির পথে যাচ্ছে।

বিহারের জায়গা অনেকে জবর দখল করে বাড়ী ঘর নির্মাণ করেছে বলেও এলাকাবাসীর অভিযোগ রয়েছে। তবে যারা বাড়ী ঘর করে আছে তারা নিজেদের জমি বলে দাবি করছে।  নয়নাভিরাম বৌদ্ধ বিহারটি সংস্কার করে দর্শনীয় স্থান হিসাবে গড়ে তোলা  হলে সেখানে হতে পারে জনপ্রিয় পিকনিক কর্ণার এবং পর্যটন কেন্দ্র । যা থেকে আসতে পারে সরকারের ব্যাপক রাজস্ব আয়।

এ বিষয়ে স্থানীয় ব্যবসায়ী নেতা মো. মাহাবুবুর আলম জানান, বিহারটি সংস্কারসহ আধুনিকায়ন করা হলে বিহারের ঐতিহ্য ফিরে আসবে এবং দেশী-বিদেশী পর্যটকদের আগমন ঘটবে। উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোছা. পারুল বেগম জানান, ঐতিহ্য ধরে রেখেছে বিহার। তিনিও সংস্কারসহ মেরামতের দাবি জানান।

কালো জাম ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে

স্বাস্থ্য ডেস্ক-ডায়াবেটিস হলে শরীরে ইনসুলিন হরমোনের নিঃসরণ কমে যায়। ফলে দেহের কোষে গ্লুকোজ পৌঁছাতে পারে না। ফলে রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ বেড়ে যায়।

অতিরিক্ত শর্করাযুক্ত খাবার ডায়াবেটিসের জন্য যেমন দায়ী। ডায়াবেটিস কখনও পুরোপুরি ভালো হয় না। তবে এই রোগ নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। খাদ্যাভাসের মাধ্যমে এটি নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়।

কালো জামের কথা আমরা সবাই জানি। এই কালো জামের দানা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। জামের দানায় রয়েছে অত্যাবশ্যকীয় কিছু পুষ্টি উপাদান। যা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে।

পুষ্টিবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জামের দানার উপকারিতা সম্পর্কে জানানো হয়েছে।

জামের পুষ্টিগুণ-

১.জামের দানায় রয়েছে জ্যামবোসিন এবং জ্যাম্বোলিন নামক অত্যাবশ্যকীয় উপাদান। যা ধীরে ধীরে শর্করার মাত্রা নিয়িন্ত্রণ করতে সহায়তা করে ও শক্তিযোগায়।

২.জামের দানায় হঠাৎ রক্তে শর্করা বেড়ে যাওয়া নিয়ন্ত্রণ করে। এ ছাড়া শরীরে ইন্সুলিনের ভারসাম্য বজায় রেখে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে করে।

৩.জাম ফাইটোকেমিক্যাল সমৃদ্ধ যা শরীরের শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে এবং ইন্সুলিনের উৎপাদন সুনিয়ন্ত্রিত রাখতে সহায়তা করে।

৪.জামের দানায় থাকা জ্যাম্বোলাইন এবং জ্যাম্বোসিন উপাদানের জন্য তা ঔষধি গুণসম্পন্ন। এ ছাড়াও জামের দানায় রয়েছে অ্যাল্কালয়েডস। যা ডায়াবেটিসের সম্ভাবনা কমায়।

৫.জামের দানা উচ্চ আঁশসমৃদ্ধ। যা হজম ক্রিয়া উন্নত করতে এবং বিপাক বাড়াতে সহায়তা করে। ফলে শরীরের শর্করার মাত্রা ঠিক থাকে।

৬. আয়ুর্বেদ শাস্ত্র থেকে জানা যায়, জাম অ্যাজমা, আর্থ্রাইটিস, হৃদরোগ, পেট ফাঁপা ও আমাশয় থেকে রক্ষা করে।

৭. জামের মূত্র বর্ধক ক্ষমতার কারণে কিডনি থেকে বিষাক্ত উপাদান বের হয়ে যায়।

৮.জামে থাকা আঁশ হজমে সহায়তা করে। এ ছাড়া বমি বমি ভাব দূর করে।