রবিবার-১৭ নভেম্বর ২০১৯- সময়: সকাল ৬:৪১
৭ কেজি চালের মূল্যে মিলছে ১কেজি পেয়াজ বিরামপুরের বাজারে চিকিৎসা সেবা দিয়ে মানব সেবা করতে চাই-পর্যটন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব হুমায়ুন কবীর বিরামপুরে নেশার ইনজেকশন ও ফেন্সিডিলসহ আটক-৩ হিলি চেকপোস্টে বিজিবি’র গোয়েন্দা সদস্যের বিরুদ্ধে সাংবাদিককে হয়রাণীর অভিযোগ বিরামপুরে বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস পালিত বিরামপুরে প্রকল্প সমাপনী কর্মশালা গরীব ও অসহায় মানুষকে চিকিৎসা সেবা দিতে পারলে আমি শান্তি পাই জনবল ও সরঞ্জামের অভাবে আজও চালু হয়নি, নবাবগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস স্টেশন “প্রেসিডেন্ট পদক” অর্জন বিরামপুরের কৃতি সন্তান ফায়ার সার্ভিসের গোলাম রওশন ঘোড়াঘাটে বানিজ্যিক ভাবে মাল্টা বাগান করে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে

রংপুর newsdiarybd.com:

৭ কেজি চালের মূল্যে মিলছে ১কেজি পেয়াজ বিরামপুরের বাজারে

বিরামপুর (দিনাজপুর) থেকে-বিরামপুরের দৈনিক খোলাবাজারে নিম্ন চালের মূল্যে ৩০ টাকা আর দেশি পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ২২০-২৩০ টাকা মূল্যে। সাধারন বাজারিদের জন্য ২৩০ টাকা মূল্যে পেয়াজ কিনতে হচ্ছে। নিম্ন আয়ের মানুষের প্রভাব পড়েছে। ভ্যান চালক প্রভাস বলেন, ৭কেজি চালের মূল্যে মিলছে ১ কেজি পেয়াজ, এ অবস্থায় থাকলে আমার খাওয়াই মুসকিল।
পিয়াজ মসলা জাতীয় উদ্ভিদ, প্রাচীন কাল থেকেই এর নানামুখী ব্যবহার হয়ে আসছে। মসলা জাতীয় উদ্ভিদ হওয়ায় এর রয়েছে ঔষুধি গুন এবং রসনা বিলাস খাবার তৈরিতে রয়েছে নানান ব্যবহার। বাংলাদেশের গ্রামীন জনপদের প্রতিটি ঘরে রমনীরা দৈনন্দিন খাবার তৈরি ও ভোজনাবিলাসদের জন্য পিয়াজ দিয়ে তৈরি করে মুখরোচক খাবার। আমরা মাছে ভাতে বাঙালী। দৈনন্দিন আহারে সবার প্রিয় ঝোল (রসালো) জাতীয় খাবার সবাই কমবেশি পছন্দ করে।

বাঙ্গালী ঝোল (রসালো) তরকারীতে অভ্যস্ত; তাই এখন তরকারীর ঝোল তৈরিতে পেঁয়াজের পরিবর্তে ব্যবহার হচ্ছে হোটেল রেস্তোরায় কাঁচা পেঁপে ও মিষ্টি কদু। একারণে বাজাবে কদর বেড়েছে পেঁপে কদুর।শনিবার ১৬ নভেম্বর সরজমিনে বাজার ঘুরে দিনাজপুরের বিরামপুরে কৃষিনির্ভরশীল ও সিমান্তবর্তী উপজেলার ঐতিহ্যবাহী শবজি হাটে দোকান ঘুরে জানা জায়, দোকানীরা প্রতি কেজি পাতা পেয়াজ পাইকারী দর ৮০ টাকা খুচরা মূল্যে বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা কেজি। ভারতীয় এলসি পেয়াজ বিক্রি হচ্ছে পাইকারী বাজারে প্রতি কেজি ১৯০ টাকা ও খুচরা বাজারে ২১০ টাকা। দেশি পেঁয়াজ পাইকারী মুল্যে বিক্রি হচ্ছে ২২০ টাকা ও খুচরা মূল্যে বিক্রি হচ্ছে ২৩০ টাকা মূল্যে।

কাঁচা বাজারের ব্যবসায়ী হেলাল হোসেন, জানান, পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ার ফলে মিষ্টি কদু, পেঁপে, মুলা ও বাঁধা কপির দামও বেড়েছে । কারণ হিসেবে তারা বলেন, হোটেলসহ বিভিন্ন খাবারের দোকানে তরি-তরকারি রান্না করার জন্য পেঁয়াজের লাগামহীন মূল্যে দিশেহারা খাবার দোকানীরা বর্তমান পেঁয়াজের পরিবর্তে মিষ্টি কদু ও পেঁপে ব্যবহার করছেন। আর পিঁয়াজু তৈরী ও চটপটিসহ মুখরোচক খাবারের সাথে সালাদ হিসাবে ব্যবহার হচ্ছে মুলা ও পেঁপে।
এদিকে, স্থানীয় দৈনিক নতুন বাজার নিয়ন্ত্রণের জন্য বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুর রহমান শুক্রবার ১৫ নভেম্বর বেলা ১১.০০ টায় কাঁচা বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে মূল্য তালিকা ও বিক্রি রশিদ দেখাতে না পারায় কয়েকজন ব্যবসায়ীকে গুনতে হয়েছে জরিমানা।

চিকিৎসা সেবা দিয়ে মানব সেবা করতে চাই-পর্যটন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব হুমায়ুন কবীর

বিরামপুর (দিনাজপুর) থেকে-সীমান্তবর্তী ও কৃষি অর্থনীতিতে অগ্রগামী দিনাজপুর জেলার বিরামপুর উপজেলায় বিরামপুর ম্যাটস এন্ড আইএইচটি অষ্টম ব্যাচের শিক্ষার্থীদের অরিয়েনটেশন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, চিকিৎসা সেবায় মনোযোগ দিয়ে মানবসেবা করতে হবে।

এ অঞ্চলের চিকিৎসাসেবা খাতকে এগিয়ে নিতে ম্যাটস্ ও আইএইচটির প্রচেষ্ট অব্যহত থাকবে। তোমরা যারা নতুন শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হয়েছো তারা পুরাতনদের কাছ থেকে অনেককিছু শেখার আছে। আমরা চিকিৎসা সেবা দিয়ে মানব সেবা করতে চাই ।

১৬ নভেম্বর শনিবার দুপুরে ম্যাটস কার্যালয়ের হলরুমে অধ্যক্ষ ডাঃ মোঃ সোলায়মান আলীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মোঃ হুমায়ুন কবীর।

বিশেষ অতিথি ছিলেন, বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ তৌহিদুর রহমান, পৌর মেয়র লিয়াকত আলী সরকার, অধ্যক্ষ, বিরামপুর সরকারী কলেজ, ফরহাদ হোসেন, প্রাক্তন শিশু বিশেষজ্ঞ ডাঃ মোস্তফা মোহাম্মদ নুরুন্নবী, প্রাক্তন সিভিল সার্জন ডাঃ ইমার উদ্দিন কায়েস, অধ্যক্ষ বিরামপুর মহিলা কলেজ, শিশির কুমার সরকার, ম্যাটস্ এর পরিচালক হারুনুর রশিদ, নূর-ই-আলম, অধ্যাপক ইকবাল হোসেন প্রমূখ।

বিরামপুরে নেশার ইনজেকশন ও ফেন্সিডিলসহ আটক-৩

বিরামপুর (দিনাজপুর) সংবাদদাতা-বিরামপুর থানা পুলিশ ভারতীয় তৈরী এক হাজার পিচ নেশার ইনজেকশন (এ্যাম্পল) ও ফেন্সিডিলসহ তিন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে।

জানা গেছে, থানার উপ-পরিদর্শক শাহজাহান সিরাজ মাদক পাচারের সংবাদ পেয়ে টহলদলসহ পৌর এলাকার দক্ষিণ লক্ষীপুর গ্রামে রাস্তায় অবস্থান নেন।

এসময় পার্বতীপুর শহরের গুলপাড়া মহল্লার আঃ জলিলের পুত্র এরশাদ এবং বিরামপুর সীমান্ত এলাকার খিয়ার মামুদপুর গ্রামের মজির উদ্দিনের পুত্র শামীম মন্ডলকে আটক করেন। তাদের ব্যাগ তল্লাশী করে এরশাদের ব্যাগ থেকে ৬শ’ এবং শামীমের ব্যাগ থেকে ৪শ’ পিচ ব্রুপিনরফিন নেশার ইনজেকশন উদ্ধার করেন।

অপর দিকে, এসআই রামচন্দ্র উপজেলার কাদিপুর রাস্তায় অভিযান চালিয়ে ৫০ বোতল ফেন্সিডিলসহ হাকিমপুর উপজেলার পাইকপাড়া গ্রামের সেকেন্দারের পুত্র ফরিদুজ্জামানকে আটক করেন।
বিরামপুর থানার ওসি মনিরুজ্জামান তিনজনকে আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, তাদের বিরুদ্ধে থানায় পৃথক দু’টি মামলা হয়েছে।

হিলি চেকপোস্টে বিজিবি’র গোয়েন্দা সদস্যের বিরুদ্ধে সাংবাদিককে হয়রাণীর অভিযোগ

 

হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি-দিনাজপুরের হিলি চেকপোস্টে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-বিজিবি’র গোয়েন্দা সদস্যের (এফএস) বিরুদ্ধে টিভি চ্যানেলের এক স্থানীয় সাংবাদিককে হয়রাণী করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। তিনি উপজেলার দক্ষিণ বাসুদেবপুর গ্রামের বাসিন্দা। গতকাল বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) দুপুরে এঘটনা ঘটে।

চ্যানেল এস এবং দৈনিক বাংলাদেশের খবরের হিলি প্রতিনিধি সাংবাদিক মো. লুৎফর রহমান অভিযোগ করে জানান, গত বুধবার বিকেলে এক আত্মীয় সহ তিনি বৈধ পাসপোর্ট-ভিসা নিয়ে ভারতে প্রবেশ করেন।

গত বৃহস্পতিবার ওই আত্মীয়কে ভারতের বালুরঘাটে রেখে তিনি দেশে আসার জন্য সেদেশের হিলি ইমিগ্রেশনে পাসপোর্ট এট্রি সহ কার্যক্রম সম্পন্ন করেন। এরপর তিনি চেকপোস্টের জিরোপয়েন্টে বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্স-বিএসএফের তল্লাশী শেষে হিলি চেকপোস্ট দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করলে সেখানে দায়িত্বরত বিজিবি সদস্যরাও ব্যাগ তল্লাশী করে পাসপোর্টটিও এন্ট্রি করেন। সেখান থেকে পাসপোর্টটি নিয়ে হিলি ইমিগ্রেশনের দিকে কয়েক গজ আসতে থাকলে এসময় বিজিবি’র গোয়েন্দা সদস্য মো. জাকির হোসেন (এফএস) এক বিজিবি সদস্যের মাধ্যমে সাংবাদিক লুৎফরকে পিছন দিক থেকে ডেকে নিয়ে পুনরায় ব্যাগটি তল্লাশীর পাশাপাশি তার শরীরেও তল্লাশী করতে থাকেন। এসময় তিনি বিজিবি’র ওই গোয়েন্দা সদস্য জাকিরের অনৈতিক কার্যকলাপ দেখে হতবাক হয়ে পড়েন।

সাংবাদিক লুৎফর আরও অভিযোগ করেন, বিজিবি সদস্যরা আমাকে পুনরায় তল্লাশীর নামে হয়রাণী করেছেন এবং শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে হাত দিয়ে তল্লাশী করেছেন। যা একজন পাসপোর্টধারী যাত্রীর জন্য বিব্রতরকর এবং অসম্মানজনক। এব্যাপারে ঘটনাটির তদন্ত সহ তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানান সাংবাদিক লুৎফর রহমান।

জানতে চাইলে, হিলি সিপি ক্যাম্পের বিজিবি’র গোয়েন্দা সদস্য মো. জাকির হোসেন (এফএস) জানান, সোর্স মারফত খবর পেয়ে সাংবাদিক লুৎফর রহমানের ব্যাগ তল্লাশী করা হয়েছে। তার শরীরে হাত দিয়ে তল্লাশী করা হয়নি। এক পর্যায়ে জাকির হোসেন বলেন, স্যরি- এটা ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে।

এদিকে, বিজিবির এখতিয়ার বর্হিভূত কার্যকলাপের কারণে পাসপোর্টযাত্রীদের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। একারণে হিলি চেকপোস্ট দিয়ে দিনদিন বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে যাত্রী সংখ্যা কমে যাচ্ছে।

এব্যাপারে হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. রফিকুজ্জামান জানান, ঘটনাটির বিষয়ে জেনেছি। সাংবাদিক লুৎফরের কাছ থেকে লিখিত অভিযোগ পেলে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে।

বিরামপুরে বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস পালিত

বিরামপুর (দিনাজপুর) থেকে-ডায়াবেটিস থেকে আপনার পরিবারকে সুরক্ষিত রাখুন। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখুন, শৃঙ্খলা মেনে চলুন।
আজ ১৪ নভেম্বর বৃহস্পতিবার সকালে বিশ্ব ডায়াবেটিস উপলক্ষে বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও বিরামপুর ডায়াবেটিস সমিতি পৃথকভাবে পালন করেছে।
সকাল ১০টায় বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উদ্দেগে ডায়াবেটিস দিবস উপলক্ষে র‌্যালী শেষে আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন, ইউএইচপিও ডাঃ সিরাজুল ইসলাম।
প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুর রহমান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেজবাউল ইসলাম আর এমও ডাঃ আহসান হাবিব সরকার বকুল, ডাঃ মহোতারিমা সিফাত ।

র‌্যালী শেষে সকাল ৯টায় বিরামপুর ডায়াবেটিস সমিতি রোগিদের বিনামূল্যে রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে কর্মসূচীর উদ্ভবন করেন ডায়াবেটিস সমিতির সভাপতি অধ্যক্ষ আক্কাস আলী।
এসময়ে উপস্থিত ছিলেন, সমিতির সাধারন সম্পাদক নুরুজ্জামান সরকার, ডাঃ ইমার উদ্দিন কায়েস, সমাজ কল্যান সম্পাদক ওবায়দুল মিনহাজ, ডাঃ পলাশ চন্দ্র সরকার, ডাঃ ইফতে খায়রুল ইসলাম জনি, উপধ্যক্ষ মেজবাউল হক, আজীবন সদস্য মাহমুদুল হক মানিক।

বিরামপুরে প্রকল্প সমাপনী কর্মশালা

বিরামপুর (দিনাজপুর) সংবাদদাতা-বিরামপুর উপজেলার ইউনিয়ন পর্যায়ে ইভিপির্আএ প্রকল্প সমাপনী ও টেকসই পরিকল্পনা প্রনয়নের লক্ষ্যে বৃহস্পতিবার (১৪ নভেঃ) বিরামপুর পৌরসভা হলরুমে এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের অর্থায়নে পল্লীশ্রী, ওয়ার্ল্ড ভিশন ও পামডো’র বাস্তবায়নে এই প্রকল্প কর্মশালার উদ্বোধন করেন, বিরামপুর পৌরসভার মেয়র লিয়াকত আলী সরকার টুটুল।

এতে বক্তব্য রাখেন, প্যানেল মেয়র মাহবুর রহমান হান্না, নির্বাহী প্রকৌশলী ফয়জুল ইসলাম, সচিব সেরাফুল ইসলাম, কাউন্সিলর মিজানুর রহমান, শহিদুল ইসলাম, জোবাইল ইসলাম জুয়েল, আঙ্গুরা বেগম, পল্লীশ্রী ইভিপিআরএ প্রকল্পের সিনিয়ন সিডিএস সাইফুল ইসলাম, সিপিএস সুবাস হাঁসদা, অজয় কুমার রায়, রতœা রানী প্রমূখ।

গরীব ও অসহায় মানুষকে চিকিৎসা সেবা দিতে পারলে আমি শান্তি পাই

জাকিরুল ইসলাম, বিরামপুর-দিনাজপুরের বিরামপুরে দিনব্যাপী ফ্রি স্বাস্থ্য সেবা “হেলথ ক্যাম্প” অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (১১ নভেম্বর) সকাল ১০ টায় উপজেলার ব্রাক হেলথ সেন্টারে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডাঃ সরকার মামুনুর রশীদ দিনব্যাপী এই স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করেন।
এসময় ডাঃ সরকার মামুনুর রশীদ প্রতিবেদক’কে জানান, “কিভাবে যেন এখানকার দরিদ্র মানুষগুলোর সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছি টেরই পাইনি”। মানুষকে সেবা প্রদান করা পৃথিবীর সব মানুষেরই নৈতিক দায়িত্ব। সুবিধাবঞ্চিত, গরীব ও অসহায় মানুষকে চিকিৎসা সেবা দিতে পারলে আমি শান্তি পাই।
তিনি আরও জানান, ডাক্তার হওয়ার পর থেকেই আমার ভাবনা ছিলো যত বেশী পারা যায় গরীব ও অসহায় মানুষের চিকিৎসা সেবা করা। এজন্যই যখন কেউ আমাকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দেওয়ার কথা বলেন সেখানেই আমি ছুটে চলে যাই।
এসময় চিকিৎসা সেবা প্রদানকালে ক্যাম্পটি ঘুরে দেখা যায়, তিনি রোগী দেখছেন পরম যত্নে, মায়া মমতায়, খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দীর্ঘ সময় ধরে। যেন মানুষগুলোর মধ্যে একাত্ম হয়ে উঠেছেন।
কয়েকজন রোগী জানান, বরাবরই তিনি গরীব ও অসহায় রোগীদের প্রাধান্য দেন, অত্র এলাকার দরিদ্র মানুষের চিকিৎসা সেবার শেষ আশ্রয়স্থল ডাঃ সরকার মামুনুর রশীদ। মানবসেবায় ডাঃ সরকার মামুনুর রশীদ এক অনন্য দৃষ্টান্ত।

জনবল ও সরঞ্জামের অভাবে আজও চালু হয়নি, নবাবগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস স্টেশন

নিউজ ডায়েরী ডেস্ক-দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে নয়টি ইউনিয়নে বসবাস করে দুই লাখের বেশি মানুষ। বিপুল জনগোষ্ঠীর এ উপজেলায় অগ্নিকাণ্ড ও দুর্ঘটনায় উদ্ধারকাজের জন্য একটি ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন নির্মাণের দাবি ছিল দীর্ঘদিনের। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৬ সালে উপজেলা সদরে একটি ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণ করা হয়। কিন্তু প্রয়োজনীয় জনবল ও সরঞ্জামের অভাবে আজও সেটি চালু করা যায়নি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, নবাবগঞ্জ সদরের খয়েরগনি গ্রামে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের নির্মাণ শুরু হয় ২০১৫ সালের ২৭ জুলাই। এক বছরের মধ্যেই এর নির্মাণকাজ শেষ হয়। এরপর তিন বছরের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও স্টেশনটিতে একজন নৈশপ্রহরী ছাড়া অন্য কোনো জনবল নিয়োগ দেয়া হয়নি।

সরবরাহ করা হয়নি উদ্ধারকাজের জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম। এ অবস্থায় ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন থাকলেও অগ্নিকাণ্ড ও বিভিন্ন দুর্ঘটনায় সেটির সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে উপজেলাবাসী। অন্য এলাকা থেকে ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধারকারী দল আসতে আসতে বেড়ে যাচ্ছে ক্ষতির পরিমাণ।

স্থানীয়রা জানায়, চার বছর আগে নবাবগঞ্জে ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের নির্মাণকাজ শুরু হয়। এক বছরের মধ্যে এ কাজ শেষ হওয়ায় তারা আশান্বিতও হয়েছিলেন। ভেবেছিলেন, অগ্নিকাণ্ড ও দুর্ঘটনায় দ্রুত জরুরি সেবা পাবেন। কিন্তু নির্মাণের তিন বছর অতিবাহিত হলেও স্টেশনটি চালু করা হয়নি। প্রায়ই এটি চালু হবে বলে খবর এলেও বাস্তবে তা ঘটছে না।

লুত্ফর রহমান ও মাহবুব হোসেন নামে দুজন বলেন, স্টেশনটি আদৌ চালু হবে কিনা, আমরা বুঝতে পারছি না।

এ এলাকায় আগুন লাগলে কিংবা দুর্ঘটনা ঘটলে আশপাশের উপজেলার অগ্নিনির্বাপক দলের জন্য অপেক্ষায় থাকতে হয়। বেশ কয়েকবারই দেখা গেছে, উদ্ধারকারী দল আসার আগেই সব পুড়ে গেছে। এ অবস্থায় আমাদের দাবি, দ্রুত লোকবল নিয়োগ ও সরঞ্জামের ব্যবস্থা করে ফায়ার সার্ভিস স্টেশনটি চালু করা হোক।

নবাবগঞ্জে ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের নৈশপ্রহরী আলাউদ্দিন বলেন, তিনি তিন বছর ধরে এখানে নৈশপ্রহরী হিসেবে কর্মরত। এখানে তিনি ছাড়া অন্য কোনো কর্মচারী নেই। কবে নাগাদ এ ফায়ার সার্ভিস স্টেশন চালু হবে, সে বিষয়ে তার কোনো ধারণা নেই।

নবাবগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান বলেন, দীর্ঘদিনের দাবির পর ফায়ার সার্ভিস স্টেশনটি নির্মাণ করা হলেও সেটি উপজেলাবাসীর কোনো কাজে আসছে না।

নির্মাণের পর তিন বছর ধরে এটি বন্ধ পড়ে আছে। আমি স্টেশনটি চালু করার জন্য জেলা সমন্বয় কমিটির বৈঠকসহ বিভিন্ন দপ্তরে কথা বলেছি। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়নি।

তিনি আরো বলেন, ফায়ার সার্ভিস স্টেশন না থাকায় অগ্নিকাণ্ড ও দুর্ঘটনায় প্রাণহানি ও ক্ষতির পরিমাণ বাড়ছে। সম্প্রতি নবাবগঞ্জের পর্যটন স্পট আশুরার বিলে নৌকাডুবিতে হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন শিক্ষার্থী মারা যান। ফায়ার সার্ভিস স্টেশনটি চালু থাকলে তাদের উদ্ধারে হয়তো আরো দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া যেত।

এ বিষয়ে দিনাজপুর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের এডি আজিজুল ইসলাম বলেন, একটি প্রকল্পের আওতায় নবাবগঞ্জসহ মোট ছয়টি ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের নির্মাণ করা হয়েছিল। বাকি পাঁচটি স্টেশন এরই মধ্যে চালু করা হয়েছে।

তবে নবাবগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান এখনো স্টেশন ভবন হস্তান্তর করেনি। তাই সেটি চালুও করা যাচ্ছে না। তবে ওই প্রতিষ্ঠানকে এক মাসের মধ্যে পুরো কাজ বুঝিয়ে দেয়ার জন্য চিঠি দেয়া হয়েছে। আশা করছি, ভবন বুঝে পেলে দ্রুত লোকবল নিয়োগের মধ্য দিয়ে স্টেশনটি চালু করা সম্ভব হবে।

দিনাজপুর ৬ আসনের সংসদ সদস্য শিবলী সাদিক বলেন, আমার নির্বাচনী এলাকার চারটি উপজেলার মধ্যে দুটিতে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন চালু রয়েছে। অন্য দুটিতে লোকবল সংকটের কারণে এ স্টেশন চালু করা যাচ্ছে না।

তবে আমি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে এ বিষয়ে কথা বলেছি। তারা জানিয়েছেন, অচিরেই ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সে জনবল নিয়োগ দেয়া হবে। এর পরই বাকি দুটি বিশেষ করে নবাবগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস স্টেশনটি সচল করা হবে।

“প্রেসিডেন্ট পদক” অর্জন বিরামপুরের কৃতি সন্তান ফায়ার সার্ভিসের গোলাম রওশন

মোঃ সামিউল আলম, বিরামপুর-বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এর সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় সম্মাননা পদক (প্রেসিডেন্ট পদক) অর্জন করলেন দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলার কৃতি সন্তান মোঃ গোলাম রওশন।
ফায়ার সার্ভিসের সুরক্ষা সেবা সপ্তাহ–২০১৯ উপলক্ষে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স বিভাগের কর্মকর্তা–কর্মচারীদের বিভিন্ন ঝুঁকিপূর্ন কাজে সাহসিকতা ও সফলতার পুরস্কার স্বরূপ দক্ষ সদস্যদের নির্বাচন করে তাদেরকে ‘পদক’ পরিয়ে সম্মাননা প্রদান করা হয়। আর এই পদকে ভূষিত হলেন বরিশাল নদী ফায়ার সার্ভিস স্টেশন এর ডুবুরি গোলাম রওশন।
দিনাজপুর জেলার বিরামপুর উপজেলার খাঁনপুর ইউনিয়নে তাঁর জন্ম। দুই ভাইয়ের মধ্যে তিনিই বড়। বাবার নাম মোকছেদুল ইসলাম।
২০১৬ সালের এপ্রিলে তিনি বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সে যোগদান করেন। খুব অল্প সময়েই সাহসিকতা, সুরক্ষা সেবা ও সফলতায় “প্রেসিডেন্ট ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স পদক-২০১৮” অর্জন করে নিলেন এই সাহসী তরুন সৈনিক।
গত মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) ফায়ার সার্ভিস স্টেশন হেডকোয়ার্টারে সুরক্ষা সেবা সপ্তাহের সমাপনী অনুষ্ঠানে তাকে এই পদক পরিয়ে দেন অনুষ্ঠানের সভাপতি ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ সাজ্জাদ হোসাইন এবং প্রধান অতিথি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব মোঃ শহিদুজ্জামান।
এই সময় ফায়ার সার্ভিসের অন্যান্য কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। প্রেসিডেন্ট ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স পদক অর্জন করায় তাকে শুভেচ্ছা জানান, বরিশাল নদী ফায়ার স্টেশনের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।
রওশন আপন জানান, মহান আল্লাহর অশেষ করুণা এবং পরিবারের ভালোবাসা ও অনুপ্রেরণায় আজ আমার এই অর্জন সম্ভব হয়েছে। তিনি আরো বলেন, নিজের সবটুকু দিয়ে দেশ ও জাতির কল্যাণে সর্বদা কাজ করে যেতে চাই। তার এই কাজে দেশবাসীর নিকট দোয়া কামনা করেন তিনি।

ঘোড়াঘাটে বানিজ্যিক ভাবে মাল্টা বাগান করে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে

ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর) প্রতিনিধি-মাল্টা বাগান করে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে আবু সাঈদ, তার এই সাফল্য দেখে অনেকেই ইতিমধ্যে বাণিজ্যিক ভাবে মাল্টা বাগান করার উদ্দোগ গ্রহন করেছেন।

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার পালশা গ্রামের আবু সাঈদ পেশায় মাছ চাষি হলেও ব্যতিক্রম কিছু করার আসায় তার নিজ উদ্দোগে গড়ে তুলেছেন মাল্টা বাগান।

মাএ এক একর জমিতে মাল্টা বাগান করে পেয়েছেন সাফল্য। তার এই সাফল্যতা দেখে মাল্টা চাষে আগ্রহ হয়ে উঠছেন অনেকে। ইতিমধ্যে এলাকায় ব্যাপক সারা পেয়েছে, আর এরি মধ্যে বাণি্িযক ভাবে মাল্টা চাষে বেশ সারা দেখা দিয়েছে।

ঘোড়াঘাট উপজেলার পালাশা গ্রামের অবু সাঈদ পেশায় মাছ চাষি হলেও সে ব্যতিক্রম কিছু করার আসায় পরিহ্মা মুলক মাল্টা চাষ করে এলাকায় ব্যাপক সারা পেয়েছেন।

এ বছরে এক একর জমিতে মাল্টা বাগান শুরু করে ব্যাপক সাফল্য পাওয়ায় আগামীতে আরো বেশী বাগান করবেন। তার এক-একটি মাল্টা গাছে ১৫ থেকে ২০টি ফল হয়েছে এবং তা খুব সু-সাদু ও মিষ্টি।

তিনি পরিত্যাক্ত জমিতে মাল্টা বাগান করে বেশ সাফল্য পাওয়ায় তার দেখা দেখি স্থানীয় বেকার যুবকরা ইতিমধ্যে বাণিজ্যিক ভাবে ২৫-৩০টি মাল্টা বাগান করে তারা উত্তরঅঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় মাল্টার চাহিদা পুরন করবে বলে এমনটি বলছেন এ এলাকার মাল্টা চাষিরা। এ দিকে কৃষি অসির বলেন কৃষকদের সার্বিক সহযোগিতা করার প্রত্যায় ব্যক্ত করেছেন।

ঘোড়াঘাট উপজেলা কৃষি অফিসার একলাস হোসেন সরকার  জানান, এ উপজেলায় ২০ থেকে ২৫টি মাল্টা চাষিদেক প্রশিহ্মনসহ সব ধরনের সহযোগিতা করে আসছেন।