শুক্রবার-১০ এপ্রিল ২০২০- সময়: রাত ৪:৪১
বিরামপুরে পৌর মেয়র সহ ৭ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে বিরামপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী পালিত বিরামপুরে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি আটক বিরামপুরে লাখো কণ্ঠে ৭ মার্চের ভাষন পাঠ গুরুদাসপুরে এক বৃদ্ধা খুন বিরামপুরে সর্বোচ্চ নম্বরপ্রাপ্ত কাটলা হলি চাইল্ড স্কুল বিরামপুরে মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে দিনব্যাপী অনুষ্ঠান দিদউফ বিরামপু‌রে দুস্থ শীতার্ত‌দের মা‌ঝে শীতবস্ত্র বিতরন বিরামপুরে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস ও জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণ গণনার সূচনা বিরামপুরে ১২ হাজার শিশুকে ভিটামিন এ প্লাস খাওয়ানো হয়েছে

জাতীয় newsdiarybd.com:

বিরামপুরে পৌর মেয়র সহ ৭ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে

এম,আই,তানিম,বিরামপুরদিনাজপুরের বিরামপুর পৌর মেয়র লিয়াকত আলী সরকারসহ ৭ জন বিদেশ ফেরত ব্যক্তিকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. সোলায়মান হোসেন মেহেদী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে, হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা ব্যক্তিদের ৪ জন ভারত, ১ জন সৌদ আরব, ১ জন সিঙ্গাপুর এবং ১ জন মালেয়েশিয়া থেকে দেশে এসেছেন। এসব ব্যক্তিরা এ মাসের ১০ থেকে ১৬ তারিখের মধ্যে দেশে আসেন। এরমধ্যে পৌর মেয়র ১২ তারিখে বিরামপুরে আসেন।

বুধবার (১৮ মার্চ) রাতে ওই ফেরত ব্যক্তিদের নিজ এলাকায় আসার খবর পেয়ে ইউএনও মো. তৌহিদুর রহমান, অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. সোলায়মান হোসেন মেহেদী ওইসব ব্যক্তিদের বাড়িতে যান। বিদেশ ফেরত ব্যক্তিদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশনা দিয়ে আসেন। সেই সাথে বিদেশ ফেরত ব্যক্তিরা হোম কোয়ারেন্টাইনের নির্দেশনা না মানলে বিষয়টি প্রশাসনকে অবগত করতে প্রতিবেশিদের তাগিদ দেওয়া হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. সোলায়মান হোসেন মেহেদী জানান, বিরামপুর পৌর মেয়র লিয়াকত আলী সরকার গত ১২ মার্চ ভারত থেকে দেশে ফেরেন। কিন্তু তিনি হোম কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন না। ১৮ মার্চ বুধবার মেয়র লিয়াকত আলী সরকারের সর্দি ও কাশি দেখা দিলে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়।

বিরামপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী পালিত

এম আই তানিম, বিরামপুর-দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শত বার্ষিকী পালন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৭ মার্চ) সকালে উপজেলা চত্তরে দিনাজপুর-৬ আসনের সংসদ সদস্য শিবলী সাদিক এমপি বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে পুস্পমাল্য দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্য দিয়ে জন্ম শত বার্ষিকীর কর্মসূচি সূচনা করেন ।

এছাড়াও বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন,বিরামপুর উপজেলা পরিষদ,মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ,স্বেচ্ছাসেবকলীগ, ছাত্রলীগ, বিরামপুর প্রেসক্লাবসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন।

পরে বিরামপুর উপজেলা কনফারেন্স রুমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শত বার্ষিকী উপলক্ষে কেক কাটেন সংসদ সদস্য শিবলী সাদিক এমপি এবং বিরামপুর ঢাকা মোড়ে অবস্থিত দারুস সুন্নাহ সেরাতুল কোরআন হাফেজিয়া কওমী মাদ্রাসায় যান ও সেখানে শিবলী সাদিক এমপি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শত বার্ষিকী উপলক্ষে নিজ হাতে মাদ্রাসার ছাত্রদের মিস্টি খাওয়ান। শেষে বঙ্গবন্ধুর আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করা হয় ।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান খায়রুল আলম রাজু, ভাইস চেয়ারম্যান মেজবাউল ইসলাম মন্ডল,পৌর মেয়র লিয়াকত আলী সরকার টুটুল, উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুর রহমান, বিরামপুর সার্কেলর সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মিথুন সরকার,ওসি মোঃ মনিরুজ্জামান প্রমুখ।

বিরামপুরে লাখো কণ্ঠে ৭ মার্চের ভাষন পাঠ

মোঃ আকরাম হোসেন-বিরামপুর উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের নিয়ে পাইলট হাইস্কুল মাঠে লাখো কণ্ঠে ৭মার্চের ভাষন পাঠ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিশাল এ অনুষ্ঠানের নেতৃত্ব দেন দিনাজপুর-৬ আসনের এম,পি শিবলী সাদিক। সেই ভাষনে একই সাথে সুর মেলান বিভিন্ন স্কুলের ছাত্রছাত্রী এবং মুক্তিযোদ্ধাসহ নানান শ্রেণি পেশার প্রতিনিধিরা।

এ সময় গভীর আবেগ ও ভাবগম্ভীর আবহের সৃষ্টি হয়। এই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের কল্যাণে বঙ্গবন্ধুর অবদান স্মরণের পাশাপাশি দেশ ও জাতির কল্যাণ ও সমৃদ্ধি কামনা করা হয়।

৭মার্চ সকাল থেকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, প্রশাসনিক কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি ও আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ পাইলট হাইস্কুল মাঠে সমবেত হন। জাতীয় সঙ্গীতের পর বেলা ১১টায় লাখো কণ্ঠে ঐতিহাসিক ৭ মার্চের পুরো ভাষন সমস্বরে পাঠ করা হয়।

এ ভাষনের সময় বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুর রহমানের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, দিনাজপুর-৬ আসনের এম,পি শিবলী সাদিক, উপজেলা চেয়ারম্যান খায়রুল আলম রাজু, ভাইস চেয়ারম্যান মেজবাউল ইসলাম, থানার ওসি মনিরুজ্জামান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি শিবেশ কুন্ডু, নাড়ু গোপাল কুন্ডু, দিলীপ কুন্ডু প্রমূখ।

উল্লেখ্য, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম রাজনৈতিক ভাষণ। আজ অবধি এমন রাজনীতিক বিশ্ববাসী পায়নি।

একটি নিপীড়িত জাতির আত্মোপলব্ধির শ্রেষ্ঠতম দিন ৭ মার্চ। এ দিন আমাদের সমুখে উন্মোচিত হয়েছিল আমাদের হাজার বছরের উযযাপিত জীবনের খতিয়ান।

বিরামপুরে মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে দিনব্যাপী অনুষ্ঠান

এম আই তানিম, বিরামপুর-মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় অপ্রতিরোধ্য বাংলাদেশ শীর্ষক দিন ব্যাপী বিভিন্ন অনুষ্ঠান করেছে বিরামপুর উপজেলা প্রশাসন।

শনিবার (১১ জানুঃ) সকালে ঢাকা মোড়ে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় নেতাদের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক নিবেদনের মাধ্যমে দিবসের সূচনা করা হয়। পরে উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ, সুধি, সাংবাদিক ও শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা আনন্দ শোভাযাত্রা নিয়ে শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে সমবেত হন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুর রহমানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, সহকারী পুলিশ সুপার মিথুন সরকার, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেজবাউল ইসলাম ও উম্মে কুলছুম বানু, থানার ওসি মনিরুজ্জামান, অধ্যক্ষ শিশির কুমার সরকার, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি নাড়ু গোপাল কুন্ডু, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক মাস্টার, যুগ্ম সম্পদক গোলজার হোসেন, দপ্তর সম্পাদক মামুনুর রশীদ, উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী তাহমিনা বেগম নাইস, প্রবীণ রাজনীতিক আব্দুল আজিজ সরকার, প্রেসক্লাবের আহবায়ক একেএম শাহজাহান প্রমূখ। সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আতশবাজির আয়োজন করা হয়।

বিরামপুরে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস ও জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণ গণনার সূচনা

মোঃ সামিউল আলম, বিরামপুর-জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উদযাপনের ক্ষণ গননা ও স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে দিনাজপুরের বিরামপুরে নানা কর্মসূচী পালন করেছে উপজেলা প্রশাসন।

শনিবার “অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ”-শীর্ষক একটি র‌্যালী উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে শহরের ঢাকামোড় হতে শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম গিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ তৌহিদুর রহমানের সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এদিকে, শুক্রবার বিকেলে দেশব্যাপী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষণ গননার উদ্বোধনের সাথে সাথে বিরামপুর উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে ক্ষণ গননার উদ্বোধন করা হয়।

এসময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুর রহমান, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মিথুন সরকার, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেজবাউল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি নাড়ু গোপাল কুন্ডু, যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক গোলজার হোসেন, দপ্তর সম্পাদক মামুনুর রশীদ মামুন, থানার অফিসার ইনচার্জ মনিরুজ্জামান মনির, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণ, শিক্ষার্থীবৃন্দ, উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ, সাংবাদিকবৃন্দ ও সুধীবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

বিরামপুরে ১২ হাজার শিশুকে ভিটামিন এ প্লাস খাওয়ানো হয়েছে

এম আই তানিম-বিরামপুর উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের ১৬৯টি কেন্দ্রের মাধ্যমে শনিবার (১১ জানুঃ) উৎসব মূখর পরিবেশে প্রায় ১২ হাজার ৩৪৫জন শিশুকে ভিটামিন এ প্লাস ক্যাপস্যুল খাওয়ানো হয়েছে।

সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে টিকা খাওয়ানোর উদ্বোধন করেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুর রহমান এবং উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সোলায়মান হোসেন মেহেদী।

এসময় হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ আহসান আলী সরকার, ডাঃ মোহাম্মদ আলী হোসেন শাহ, এমটিইপিআই মাসুদ রানা সহ চিকিৎসক, কর্মকর্তা ও স্বাস্থ্যকর্মীগণ উপস্থিত ছিলেন।

ধামইরহাটে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় বড়দিন পালিত

 

ধামইরহাট (নওগাঁ) প্রতিনিধি-নওগাঁর ধামইরহাটে বিপুল উৎসাহ উ্দ্দীপনা মধ্যদিয়ে খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব বড়দিন পালিত হয়েছে। খ্রিষ্ট পল্লীগুলোতে নতুন সাজে সেজেছিল।

নারী,পুরুষ ও শিশু দিবসটি উপলক্ষে নতুন পোশাক পড়ে বিভিন্ন কর্মসূচীতে অংশ গ্রহণ করেন।

জানাগেছে, বুধবার উপজেলার প্রায় ৪টি বড় এবং প্রায় ৬২টি ছোট গীর্জায় দেশবাসীর শান্তি সমৃদ্ধি কামনা করে দিবসের কার্যক্রম শুরু হয়। দিনের অন্যান্য কর্মসূচীর মধ্যে ছিল খেলাধুলা,সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান,উন্নত খাবের পরিবেশন করা।

খ্রিষ্টান অধ্যুষিত লক্ষীতাড়া গ্রামের অধিবাসী ও উপজেলা পারগানা সেবেস্তিয়ান মুরমু বলেন,আমাদের এই দিনটি সবচেয়ে উৎসবের দিন। এক বছর ধরে আমরা অপেক্ষা করি কবে আসবে এদিনটি।

এ দিনে পরিবারের সকলে নতুন পোশাক পরিধান করে এবং উন্নতমানের খাবারের আয়োজন করা হয়। বড়দিন উপলক্ষে খিষ্টান পল্লীর মাটির ঘরগুলো বিভিন্ন আলপনার মাধ্যমে বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছিল।

বেনিদুয়ার ক্যাথলিক চার্জের ফাদার মি.কর্ণেলিউস মুরমু বলেন,বেনীদুয়ার,সোনাদিঘী,উত্তর চকযদু ও তালঝাড়ী চার্জসহ অন্যান্য চার্জে সকলের জন্য প্রার্থনা করা হয়।

প্রার্থনার পর খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করা হয়। এছাড়া খেলাধুলা,সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও মতবিনিময়ের আয়োজন করা হয়।

ধামইরহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার গনপতি রায় বলেন,বড়দিন উপলক্ষে সরকারের পক্ষ থেকে প্রত্যেক গীর্জায় অনুদান প্রদান করা হয়েছে। বড়দিন উপলক্ষ যেন কোন বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি না হয় সেই লক্ষ সার্বক্ষনিক খোঁজ খবর নেয়া হয়েছে।

বিরামপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধারা পেল স্মার্ট কার্ড বিজয় দিবসে

বিরামপুর (দিনাজপুর) থেকে- বিজয় দিবসে বিরামপুরে মুক্তিযোদ্ধারা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনে স্মার্ট কার্ড হাতে পেলেন।

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন, বিরামপুর উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা নির্বাচন অফিস কর্তৃক মহান বিজয় দিবসে মুক্তিযোদ্ধা ও স্থানীয় ইউএনও , মেয়র, কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা হাতে পেলেন জাতীয় স্মার্ট কার্ড।

এসময় উপজেলা নির্বাচন অফিসার এটিএম সেলিম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ তৌহিদুর রহমান, পৌর মেয়র মোঃ লিয়াকত আলী সরকার টুটুল, বীরমুক্তিযোদ্ধা মোঃ মোস্তাক হোসেন হাতে স্মার্ট কার্ড তুলে দেন।
নির্বাচন কর্মকর্তা এটিএম সেলিম জানান, পর্যায়ক্রমে উপজেলার সকল মুক্তিযোদ্ধা, প্রশাসনের সকল কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি ও ৭টি ইউনিয়ন এবং পৌরসভার সাধারন ভোটারদের মাঝে জাতীয় স্মার্ট কার্ড বিতরন করা হবে।

পরিচয়পত্র পেয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধাগন উচ্ছসিত হয় এবং তাদেরকে সম্মানিত করায় বর্তমান সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

বিজয় দিবসে হিলি সীমান্তে বিএসএফকে মিষ্টি উপহার দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছে বিজিবি

মাসুদুল হক রুবেল-মহান বিজয় দিবসের আনন্দকে ভাগাভাগি করে নিতে হিলি সীমান্তে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষি বাহিনী বিএসএফকে মিষ্টি উপহার দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

সীমান্তে সৌহাদ্য সম্প্রতি বজায় রেখে দায়িত্ব পালনের লক্ষ্যে দ’ুদেশের বিভিন্ন ধর্মীয় ও জাতীয় উৎসবগুলিতে বিজিবি ও বিএসএফ একে অপরকে মিষ্টি ও বিভিন্ন সামগ্রী উপহার দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়ে থাকে।

এতে করে সীমান্তে দায়ীত্ব পালনরত দুবাহিনীর মাঝে বিরাজমান সুসম্পর্ক আরো সুদৃড় থাকে।
আজ সোমবার সকাল ৯ টায় হিলি সীমান্তের চেকপোষ্ট গেটের শুন্যরেখায় বিজিবি’র হিলি আইসিপি ক্যাম্প কমান্ডার সুবেদার আলতাব হোসেন ও বিএসএফের হিলি ক্যাম্প কমান্ডার শ্রী  জাগদিস প্রসাদ এর মধ্যে শুভেচ্ছা বিনিময় করা হয়। এ সময় বিজিবি-বিএসএফ সদস্যগন উপস্থিত ছিলেন।
বিজিবির হিলি আইসিপি ক্যাম্প কমান্ডার সুবেদার আলতাব হোসেন জানান, মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে আজ সোমবার বিজিবির পক্ষ থেকে বিএসএফকে ১০ পেকেট মিষ্টি উপহার দিয়ে তাদের শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে।

স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশের অস্তিত্ব প্রকাশের দিন আজ

নিউজ ডায়েরী ডেস্ক-বছর ঘুরে আবার ফিরে এসেছে সেই গৌরবের দিন। পৃথিবীর মানচিত্রে স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশের অস্তিত্ব প্রকাশের দিন আজ।

৪৮ বছর আগে এই দিনে বর্বর পাকিস্তানি বাহিনী হাতের অস্ত্র ফেলে মাথা নিচু করে দাঁড়িয়েছিল বিজয়ী বাঙালির সামনে। সেদিন তারা স্বাক্ষর করেছিল পরাজয়ের সনদে। আর বীরের জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ ঘটেছিল বাঙালির। আজ ১৬ ডিসেম্বর, মহান বিজয় দিবস।

এবারের বিজয় দিবস এসেছে ভিন্ন এক প্রেক্ষাপটে। আগামী ২০২০ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং এর পরের বছর ২০২১ সালে স্বাধীনতা অর্জনের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করবে বাংলাদেশ।

বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একাত্তরের ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে লাখো জনতার সামনে দেওয়া ঐতিহাসিক ভাষণে শত্রুদের মোকাবিলা করার জন্য যার কাছে যা আছে, তা-ই নিয়ে সবাইকে প্রস্তুত থাকতে বলেন তিনি। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’ একাত্তর সালের ৯ মাসের সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের পথ বেয়ে এসেছে বাঙালির বিজয়।

পাকিস্তানি ঔপনিবেশিক শাসন ও শোষণের বিরুদ্ধে দীর্ঘ ২৪ বছরের মুক্তির সংগ্রাম ও একাত্তর সালের ৯ মাসের সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের পথ বেয়ে এসেছে বাঙালির বিজয়। সাম্প্রদায়িক দ্বিজাতিতত্ত্বের ভিত্তিতে সৃষ্ট পাকিস্তানে ১৯৪৭ সালেই বাঙালির ওপর প্রথম আঘাত এসেছিল।

রাষ্ট্রভাষা বাংলা করার ঘোষণা দিয়েছিলেন পাকিস্তানি শাসকেরা। ১৯৫২ সালে বুকের তাজা রক্তে রাজপথ রাঙিয়ে বাংলার বীর সন্তানেরা মাতৃভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠা করে বিশ্বে এক অনন্য নজির সৃষ্টি করেছিলেন। ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে স্বাধিকারের চেতনার যে স্ফুরণ ঘটেছিল, কালক্রমে তা সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধে রূপ নেয়।

স্বাধীনতার জন্য জীবন উৎসর্গ করা অকুতোভয় বীর সন্তানদের গভীর বেদনা ও পরম শ্রদ্ধায় স্মরণ করবে আজ কৃতজ্ঞ জাতি। শ্রদ্ধা জানাবে সম্ভ্রম হারানো মা-বোনদের।

সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে সকাল থেকে ঢল নামবে জনতার। শ্রদ্ধা-ভালোবাসা নিয়ে শহীদদের উদ্দেশে পুষ্পাঞ্জলি নিবেদন করবে লাখো মানুষ। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বজ্রকণ্ঠের ভাষণ আর মুক্তিযুদ্ধের সময়ের জাগরণী গানে মুখর হবে পাড়া-মহল্লা, গলি থেকে রাজপথ।

বিজয়ের ৪৮ বছর পূর্তিতে রাজধানীসহ দেশের বড় বড় শহরের প্রধান সড়ক ও সড়কদ্বীপ জাতীয় পতাকায় সাজানো হয়েছে। রাতে গুরুত্বপূর্ণ ভবন ও স্থাপনায় করা হবে আলোকসজ্জা। সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে।

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি তাঁর বাণীতে বলেন, স্বাধীনতা বাঙালি জাতির শ্রেষ্ঠ অর্জন। এ অর্জনের পেছনে রয়েছে শোষণ-বঞ্চনা এবং রক্তক্ষয়ী সংগ্রাম ও আত্মত্যাগের ইতিহাস। লাখো শহীদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতার সুফল জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার বিকল্প নেই।