শনিবার-২৫ জানুয়ারি ২০২০- সময়: ভোর ৫:০১
গুরুদাসপুরে এক বৃদ্ধা খুন বিরামপুরে সর্বোচ্চ নম্বরপ্রাপ্ত কাটলা হলি চাইল্ড স্কুল বিরামপুরে মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে দিনব্যাপী অনুষ্ঠান দিদউফ বিরামপু‌রে দুস্থ শীতার্ত‌দের মা‌ঝে শীতবস্ত্র বিতরন বিরামপুরে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস ও জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণ গণনার সূচনা বিরামপুরে ১২ হাজার শিশুকে ভিটামিন এ প্লাস খাওয়ানো হয়েছে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে সীতার কুটুরি গোচারণ ভূমিতে পরিণত কালো জাম ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে ঐতিহ্যবাহী খেজুর রস, কালের পরিক্রমায় প্রতি বছরই হাজির হয় শীত দিনাজপুর হতদরিদ্র শীতার্থ মানুষের পাশে এগিয়ে এসেছে ডিএফএর

রাতে কম্বল নিয়ে ছিন্নমূল পল্লীতে ইউএনও আয়েশা সিদ্দীকা

মোহাম্মাদ মানিক হোসেন চিরিরবন্দর-সারা দেশে জেঁকে বসেছে শীত। এই শীতে প্রয়োজনীয় শীতবস্ত্রের অভাবে সবচেয়ে বেশি কষ্ট করেন অসহায় ছিন্নমূল মানুষ। শীতের তীব্রতার সঙ্গে বাড়ে তাদের কষ্টও।

অসহায় এসব মানুষের কষ্ট লাঘবে মধ্যরাতে কম্বল নিয়ে ছুটে যাচ্ছেন দিনাজপুর জেলার চিরিরবন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আয়েশা সিদ্দীকা।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ মেজবাউল করিমকে সাথে নিয়ে তিনি প্রতিদিন রাতে তিনি কম্বল বিতরন করছেন।

রোববার মধ্য রাতে তিনি ছুটে যান উপজেলা প্রান্তিক অসহায় ছিন্নমূল পল্লীতে। এ সময় তিনি শীতার্ত মানুষের শরীরে কম্বল জড়িয়ে দেন। এ সময় শীতার্ত অসহায়রা ইউএনও প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

দিনের বেলায় দাফতরিক কাজ করে রাতে কম্বল নিয়ে নিজেই ছুটে যান শীতার্ত মানুষের কাছে। প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে আসা কম্বল নিজে উপস্থিত থেকে প্রতিদিন এমন করে বিতরণ করবেন বলে জানালেন ইউএনও আয়েশা সিদ্দীকা ।

উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের প্রত্যন্ত এলাকায় গিয়ে অসহায় মানুষদের গায়ে কম্বল জড়িয়ে দিচ্ছেন তিনি। মধ্যরাত ছাড়া অফিসে সারাদিন বিভিন্ন সময়ে অসহায় শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ করেন তিনি।

প্রকৃত পক্ষেই যেন অসহায়রা কম্বলগুলো পান সে জন্য ইউএনও নিজে কম্বল বিতরণ করছেন। প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলের এসব কম্বল পেয়ে হাসি ফুটছে শীতার্তদের মুখে।

এই ব্যাপারে ইউএনও আয়েশা সিদ্দীকা বলেন, আমরা প্রত্যন্ত এলাকায় গিয়ে অসহায় মানুষদের কাছে কম্বল তুলে দিচ্ছি। প্রয়োজনে বেসরকারিভাবে আরও কম্বল সংগ্রহ করে অসহায় শীতার্তদের মাঝে বিতরণ করা হবে।

print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *