বৃহস্পতিবার-৬ আগস্ট ২০২০- সময়: সকাল ৮:০০
বিরামপুরে পৌর মেয়র সহ ৭ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে বিরামপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী পালিত বিরামপুরে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি আটক বিরামপুরে লাখো কণ্ঠে ৭ মার্চের ভাষন পাঠ গুরুদাসপুরে এক বৃদ্ধা খুন বিরামপুরে সর্বোচ্চ নম্বরপ্রাপ্ত কাটলা হলি চাইল্ড স্কুল বিরামপুরে মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে দিনব্যাপী অনুষ্ঠান দিদউফ বিরামপু‌রে দুস্থ শীতার্ত‌দের মা‌ঝে শীতবস্ত্র বিতরন বিরামপুরে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস ও জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণ গণনার সূচনা বিরামপুরে ১২ হাজার শিশুকে ভিটামিন এ প্লাস খাওয়ানো হয়েছে

রাজারহাটে রাস্তা পাকা হলেও ব্রীজ সংষ্কার না হওয়ায় চরম দূর্ভোগ

প্রহলাদ মণ্ডল সৈকত-কুড়িগ্রামের রাজারহাটে পাকা রাস্তা সংষ্কার হলেও ভাঙ্গা ব্রীজ সংস্কার না হওয়ায় গত ৩ বছর ধরে চরম দূর্ভোগের স্বীকার হচ্ছে এলাকার ১৫ হাজার মানুষ।

উপজেলার কাশেম বাজার থেকে বড়বাড়ী যাওয়ার একমাত্র রাস্তার মাঝ পথে ধরাইর ব্রীজে এ সমস্যার সৃষ্টি হওয়ায় প্রতিনিয়ত পথচারীরা দূর্ঘটনা কবলে পড়েছে।

বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় বড়বাড়ী থেকে আসা মোটর সাইকেলে থাকা ৩ আরোহী ধরাইর ভাঙ্গা ব্রীজে দুর্ঘটনায় পড়ে আহত হয়ে লালমনিরহাট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে। তাদের মধ্যে একজনের অবস্থায় আশংকাজনক বলে হাসপাতালের চিকিৎসক জানিয়েছে।

এলাকাবাসীরা জানান, উপজেলার ঘড়িয়াল ডাঙ্গা ইউনিয়নের কাশেম বাজার থেকে ভীমশর্মা হয়ে বড়বাড়ী যাওয়ার সড়কের মাঝখানে পশ্চিম দেবত্তর মৌজায় ধরাইর ব্রীজ। গত ৩বছরে আগে বন্যায় কাশেম বাজার হতে বড়বাড়ী যাওয়ার পথিমধ্যে ধরাইর ব্রীজের মাঝখানে ভেঙ্গে যায়। তখন থেকেই ব্রীজটির উপর দিয়ে যানবাহনসহ মানুষ অতিকষ্টে পারাপাড় হয়।

রাতের অন্ধকারে এ ব্রীজের উপর দিয়ে যাতায়াত করা কঠিন হয়ে পড়ে। এ অবস্থায় ব্রীজ পারাপাড় করতে গিয়ে ছোট বড় ২০টির অধিক দূর্ঘটনার কবরে পড়ে। এ বছর ওই সড়কটির পাকা করণের কাজ সমাপ্ত হলেও ধরাইর ব্রীজ সংষ্কার হয়নি।

ব্রীজ না হওয়ায় বড়বাড়ী, সুলতান বাহাদুর, ভীমশর্মা, গোবধা, কিসামত গোবধা, মোস্তফি, মিয়া পাড়া ও লালমনিরহাটের মানুষ এ সড়ক দিয়ে যাতায়াত করতে গিয়ে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন।

এ বিষয়ে সংযোগ সড়কের ভীমশর্মা গ্রামের মহেন্দ্রনাথ রায় বলেন, ব্রীজটি নির্মাণ হয়েছে ১৯৭৫ সালে। ৩০বছর আগে এটি একবার সংষ্কার করা হয়েছিল।

দীর্ঘদিন যাবত এই ব্রীজ ভেঙ্গে পড়ে থাকায় ভাঙ্গা ব্রীজের পশ্চিমে বাইপাস হয়ে প্রতিনিয়ত মালবাহী, গাড়ী, রিকসা, ভ্যানসহ মোটরসাইকেল পার করতে চরম দূর্ভোগের স্বীকার হচ্ছে কর্মব্যস্ত মানুষ। এমনকি বর্ষাকালীন সময়ে বাইপাস সড়কটিও পানিতেই ডোবে যায়।

এছাড়া রাস্তায় ধারে সতর্কতা মুলক সাইন বোর্ড কিংবা মাইলফলক না থাকায় দূর্ঘটনার জন্য সড়ক বিভাগকে দায়ী করেছেন পথিকরা। এলাকারবাসী দ্রুত ব্রীজটি সংষ্কার করার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন।

এ ব্যাপারে রাজারহাট উপজেলা প্রকৌশলী আলহাজ্ব শফি মোঃ আবু তাহের বলেন, ব্রীজটি ফ্লাড প্রকল্পে গৃহীত হয়েছে। অর্থ বছরে বাস্তবায়ন করা হবে।

print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *