বুধবার-১৩ নভেম্বর ২০১৯- সময়: রাত ১২:০৫
ঘোড়াঘাটে বানিজ্যিক ভাবে মাল্টা বাগান করে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে নাটোরের প্রতিবন্ধি প্রবীণ দম্পত্তি ভাতা নয়, চায় মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি নবাবগঞ্জে ইঁদুর কেটে ফেলছে কাঁচা আমন ধানের রোপা উৎপাদন ব্যাহত হওয়ার আশংকা কমেছে সময় ও দুর্ঘটনা,ঝালকাঠিতে ১৪ কি.মি মহাসড়ক নির্মাণ, স্বস্তিতে দক্ষিন-পশ্চিমাঞ্চলের যাত্রীরা রাজাপুরে ব্যক্তি উদ্যোগে শিক্ষার্থীদের জন্য ব্রীজ নির্মান, বই ও বেঞ্চ প্রদান মুক্তিযুদ্ধে গুলিবিদ্ধ প্রসঞ্জী রায়এর পাশে- এমপি গোপাল ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে হিলি স্থলবন্দরে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল হাসপাতালে লাইভ ওয়ার্কশপে বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় রিং (স্টেন্ট) সফল প্রতিস্থাপন সম্পন্ন ধামইরহাটে তিন ভূয়া ডিবি পুলিশ আটক সম্মানি না পেয়ে চিকিৎসা দিতে এলেন হারবাল এ্যাসিস্টেন্ট!

ঘোড়াঘাটে টিএন্ডটি সেবার বেহালদশা বাড়ছে গ্রাহকের দায়ের বোঝা

মোঃ ফরিদুল ইসলাম, ঘোড়াঘাট- প্রায় এক দশক যাবৎ দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট পৌরসভা এলাকার টিএন্ডটি লান্ডফোন সংযোগগুলো চলছে সেবাহীন ও বায়বীয়ভাবে।

সংযোগ খুটি, তার ও ক্যাবিনেটবিহীন অবস্থায় গ্রাহকসেবা না পেলে যথারীতি তাদের নামে বিল হচ্ছে প্রতিমাসেই। অপরদিকে অর্ধযুগের বেশি সময় যাবৎ বিলের কপিও হাতে পাচ্ছে না বেশিরভাগ গ্রাহকরা।

জানা যায়, ২০০৭-০৮ এর দিকে তৎকালীন সরকার বিনা খরচে টিএন্ডটির সংযোগের ঘোষণা দিলে ঘোড়াঘাট পৌরসভার অনেকেই উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে টিএন্ডটি সংযোগ নেন যা বর্তমানে প্রায় ১৩০ টি।

সংযোগ নেয়ার পর খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে শুরু হয় গ্রাহক ভোগান্তি। কখনো লাইনে সমস্যা তো কখনো সংযোগ তার বিচ্ছিন্ন।

প্রাথমিক পর্যায়ে স্থানীয় টেলিফোন ভবনের কর্মকর্তারা সমস্যার সমাধান করলেও ধীরে ধীরে দেখা দেয় স্থবিরতা এবং বর্তমানে এই সেবা একেবারে শুন্যের কোঠায়। এরপরের ভোগান্তি আরও করুণ। সময়মতো বিলের কাগজ না পাওয়ায় সংযোগ নেয়ার ২-৩ বছর পর একপর্যায়ে কিছু গ্রাহক স্থানীয় টেলিফোন ভবন অফিসে দৌড়ঝাঁপ করে দিনাজপুরের রাজস্ব অফিস থেকে বিল যে হাতে পেয়েছেন তাতে চোখ চড়র গাছ হয়ে যাওয়ার উপক্রম। তাতে মোট বিলের যে আকার দাড়িয়েছে তা অধিকাংশ গ্রাহকের কাছেই আপিত্তকর বলে মনে হয়েছে। তাদের অভিযোগ নূনতম বিল না হয়ে সংযোগ তার বিচ্ছিন্ন থাকার পরও তাদের নামে গায়েবি বিল করা হয়েছে।

পৌরসভার বিভিন্ন স্থানে সরেজমিনে অনুসন্ধানকালে দেখা যায় কোনো কোনো স্থানে তারবিহীন অবস্থায় টিএন্ডটির খুটি থাকলেও বেশিরভাগ স্থানে টিএন্ডটির খুটি থাকার চিহ্ন পর্যন্ত নেই।

এ সময় কিছু গ্রাহকের সাথে কথা বলেল তারা ক্ষিপ্ত হয়ে অভিযোগর ভাষায় বলেন,কিসের টিএন্ডটি,খুটি নাই তার নেই সংযোগ নেই কিসের টিএন্ডটি।

টিএন্ডটি সংযোগ ব্যবহার না করতে পারলেও তাদের নামে বিল হচ্ছে প্রতিমাসেই এবং একদিন না একদিন তা গ্রাহককে পরিশোধ করতেই হবে জানালে তারা আতংকগ্রস্ত হয়ে পড়েন। গ্রাহকদের ধারনা যেহেতু তাদের টিএন্ডটি সংযোগ তারবিহীন অর্থাৎ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় আছে সেহেতু বিলের কোনো প্রশ্নই আসেনা।

এ ব্যাপারে ঘোড়াঘাট টেলিফোন ভবনের সুপারভাইজারের সঙ্গে কথা হলে তিনি টিএন্ডটির এই দুরবস্থার কথা স্বীকার করে জানান,পর্যাপ্ত সংখ্যাক লোকবল না থাকায় ও চাহিদা মোতাবেক লাইন মেরামত সামগ্রী না পাওয়ায় তারা গ্রাহকদের সেবা নিশ্চিত করতে পারছেন না।

print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *